February 28, 2024

বাচ্চাদের টোফেন সিরাপ এর কাজ কি | বাচ্চাদের টোফেন সিরাপ খাওয়ার নিয়ম || টোফেন সিরাপ এর দাম কত

টোফেন সিরাপ এর কার্যকারিতা/কাজ Tofen syrup এর কাজ কি – টোফেন সিরাপ এর দাম কত – টোফেন সিরাপ এর ডোজ, বাচ্চাদের টোফেন সিরাপ এর ব্যবহারবিধি সম্পর্কে a to z জানতে পারবেন পোস্ট টি পড়লে।

টোফেন সিরাপ বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানির তৈরি এই ওষুধ হাঁপানি, সর্দি-কাশি, অ্যালার্জি, চোখ ওঠা (কনজাংটিভাইটিস) ইত্যাদি নানান চিকিৎসায় চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। এই আর্টিকেলটি পড়ে টোফেন সিরাপ খাওয়ার নিয়ম ও ব্যবহারবিধি বিস্তারিত জানতে পারবেন।

টোফেন সিরাপ এর কাজ / কার্যকারিতাঃ

টোফেন সিরাপটি বিশেষ করে বাচ্চাদের ঠান্ডাজনিত সমস্যা যেমনঃ সর্দি, কাশি নিরাময়ে বেশী ব্যাবহার করা হয়। এছাড়াও শিশুদের হাপানি, স্বাসকষ্ট, অ্যালার্জি ইত্যদি রোগের ক্ষেত্রে ও এ সিরাপটি ডাক্তাররা রোগীদের প্রেসক্রাইব করে থাকেন।

টোফেন সিরাপের ব্যবহারবিধিঃ

এই ঔষটি কেবলমাত্র রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ীই সেবন করতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যাতিত কোনোভাবেই এই ওষুধ সেবন করা যাবে না। যেকোনো বয়সের রোগির ক্ষেত্রেই ডাক্তার সর্বপ্রথম রোগীর শারিরীক কোনো জটিল রোগ আছে কিনা তা জেনে নিবে যেমনঃ ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনির জটিলতা আছে কিনা তা জেনে তারপরে ভেবে চিন্তে টোফেন সিরাপটি খেতে নির্দেশ দিয়ে থাকবে।

এছাড়াও রোগী এসময়ে অন্য কোনো ঔষধ সেবন করেন কিনা এবং রেগীর বয়স ও রোগের অবস্হা বুঝে টোফেন সিরাপটি খাওয়ার পরামর্শ দিবেন, এবং প্রতিদিন কতো বেলা  ও কয় চামচ সেবন করবে তা জানিয়ে দিবেন। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সেবন করবেন, অতিরিক্ত ডোজ গ্রহন করবেননা।

টোফেন /Tofen সিরাপের আরও কিছু কাজঃ

সর্দিকাশি নিরাময়ের জন্য বাজারে যতো ঔষধ রয়েছে তারমধ্যে জনপ্রিয় এবং কার্যকরী একটি ঔষধ হলো টোফেন। হাঁপানির বা এজমা রোগের চিকিৎসায় ও টোফেন বা কিটোটাইফেন এর উল্লেখযোগ্য সাফল্য লক্ষ্য করা গেছে। টোফেন সিরাপ সেবন করার ঔষধ হলেও এটি হাপানীর জন্য ইনহেলার মতোই কাজ করে।
টোফেন সিরাপ সেবনে হাপানী নির্মুল না হলেও শ্বাস বা হাপানী রোগকে দমিয়ে রাখা যায়না।

সর্দি-কাশির চিকিৎসায় যত ওষুধ ব্যবহার করা হয় আমাদের দেশে, টোফেন সিরাপ সেগুলোর একটি।
কিন্তু শুধু এটাই টোফেন সিরাপের কাজ নয়। টোফেন সিরাপের মূল কাজ হাঁপানির চিকিৎসায়। হাঁপানির বা এজমা রোগের চিকিৎসায় টোফেন বা কিটোটাইফেন এর উল্লেখযোগ্য সাফল্য লক্ষ্য করা গিয়েছে। মুখে খাওয়ার ওষুধ হলেও এটি হাঁপানি রোগীকে ইনহেলারের মতোই সুবিধা দেয়। হাঁপানি নির্মূল করতে না পারলেও এই ওষুধে হাঁপানির লক্ষণগুলোকে দমিয়ে রাখা যায়। 

চোখের রোগ কনজাংটিভাইটিস যেটাকে (চোখ ওঠা) বলা হয়, এই রোগের চিকিৎসায় ও মুখে সেবনের জন্য টোফেন বা কিটোটাইফেন সিরাপ সেবন করা হয়। এছাড়াও চোখের প্রদাহ, চোখ লাল হওয়া ও চুলকানি, জ্বালাপোড়া উপশমেও টোফেন সিরাপের কার্যকারিতা রয়েছে।

শুধুমাত্র উপরোক্ত ওই রোগ গুলোর জন্যই টোফেন সিরাপের ব্যাবহার হয়না, এছাড়াও পাকস্থলী ও অন্ত্রের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে এই ওষুধ কার্যকরী। যার কারণে গ্যাস্ট্রিক, কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো উদরাময় সমস্যা দূর করা যায়। 

টোফেন সিরাপ এর ডোজ / বাচ্চাদের টোফেন সিরাপ খাওয়ার নিয়মঃ

★ যাদের বয়স শুরু থেকে ১ বছর তাদেরকে হাপ চামচ করে দিনে ২ বেলা সকালে ও রাতে।

★ যাদের বয়স ১ থেকে ৩ বছর তাদেরকে ১ চামচ করে দুই বেলা সকালে ও রাতে। 

★ যাদের বয়স ৩ থেকে ৬ বছর তাদের দের চামচ করে  দুই বেলা সকালে ও রাতে।

★ যাদের বয়স ৬ থেকে ১২ বছর তাদেরকে ২ চামচ করে দিনে দুই বেলা সকালে ও রাতে।

অবশ্যই এই সিরাপটি ভরা পেটে খাওয়াতে হবে।

টোফেন সিরাপ এর দাম কতঃ

টোফেন সিরাপটি বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানির তৈরি এটি বাজারে ১০০ মিলি সাইজের পাওয়া যায়, এর দাম ৬৫ টাকা। স্হানভেদে এর দামের পার্থক্য দেখা দিতে পারে কমবেশি, তবে কোম্পানির দেওয়া টোফেন সিরাপের গায়ের খুচরা মুল্যে বিক্রি করাই উচিত, খুচরা মূল্যের বেশী দাম নিলে সেটা আইনগতভাবে দন্ডনীয় অপরাধ।

আরো পড়ুনঃ ১০+ বাচ্চাদের কাশির সিরাপ | বাচ্চাদের সর্দি কাশির ঔষধের নাম

সাবধানতাঃ

শুধুমাত্র টোফেন সিরাপ নয় যেকোনো ঔষধ সেবনের পূর্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে সেবন করা উচিৎ। ডাক্তার রোগীর অন্যান্য রোগ এবং শরীরের কন্ডিশন দেখে ঔষধ সেবনের নির্দেশ দিয়ে থাকে।
বাচ্চাদের জন্য হোক বা বড় মানুষের জন্য, যেকোনো বয়সের লোকের জন্যই যেকোনো ধরনের ঔষধ খাওয়ার পূর্বে ডাক্তারের সাথে কথা বলে তারপরে নেওয়া উচিত।।

Dreamer

বিশ্বজোড়া পাঠশালা মোর সবার আমি ছাত্র .........

View all posts by Dreamer →