June 20, 2024

বিদ্যাকৌশল: লেখাপড়ায় সাফল্যের সহজ ফরমুলা pdf | Bidya Kaushal pdf download by Ragib Hasan

bidya-kaushal-lekhaporay-safolyer-sahoj-formula-pdf

বিদ্যাকৌশল pdf বই free download – লেখকঃ রাগিব হাসান। | লেখাপড়ায় সাফল্যের সহজ ফরমুলা  pdf book by Ragib Hasan. পৃষ্ঠাঃ ১২৮ টি। pdf সাইজঃ 18 mb.

বিদ্যাকৌশলঃ লেখাপড়ায় সাফল্যের সহজ ফরমুলা বই রিভিউঃ 

বইমেলা শুধু বইয়ের মেলা নয় বরং এ হচ্ছে আলোর মেলা, তবে সেই আলোকে রঙিন ও প্রানবন্ত করতে প্রতিমেলাতেই নতুন নতুন বই বের হয়। বই সংগ্রহ করা কঠিন কোন কাজ না তবুও পাঠক বইমেলায় আগ্রহ নিয়ে যায় নতুন প্রকাশিত বইয়ের ঘ্রাণ নিতে, কেউ আসে বই পড়ুয়া জাতীদের দেখতে, কেউ আসে আড্ডা দিতে। আমি আড্ডাবাজদের দলে।

বইমেলার প্রথম দিন আমার জন্মদিন এজন্য দিনটি আমার কাছে শুধু বইয়ের সাথে সখ্যতা গড়ার দিন হিসেবেই বিবেচ্য। যথারীতি প্রথমদিনেই হাজির। জন্মদিনের মত বিশেষ দিনটিতে নতুন বইয়ের সাথে আড্ডা দিব এরচেয়ে ভালো অভিজ্ঞতা আর কি হতে পারে। এ বছরটাও ব্যতিক্রম না মোটেও। নতুন বইয়ের খোঁজে নেমে পড়লাম। ঘুরতে ঘুরতে হঠাৎ কালো মলাটের একটা বইয়ে চোখ আটকে যায়। 

হাতে নিয়ে দেখতে লাগলাম। বইটির নামঃ বিদ্যাকৌশল -লেখাপড়ায় সাফল্যের সহজ ফরমুলা, ব্যাপারটা কেমন একটা খটকা লাগলো।  এ আবার কোন ধরনের নাম? কি আছে এতে? কে পড়বে এই বই? বিদ্যার আবার কৌশল থাকে কি করে? বলে রাখা ভালো- একজন প্রচন্ড পরিমাণে খারাপ ছাত্র বিধায় লেখাপড়ার মাঝে বরাবরই ছোট ছোট চোরা গলি খুঁজে বের করার অভ্যাস আমার থাকে যাতে শর্টকার্ট পদ্ধতিতে ভালো কিছু করতে পারি। 

যখন সেই পথ খুঁজে পাই হাঁটতে ভুলে গিয়ে সরাসরি দৌড় শুরু করি। বইয়ের ভুমিকাটা পড়ে ভাবলাম কিছু একটা আছে নিয়ে যাই, যেই ভাবা সেই কাজ। ঐদিনই বইটি কিনে লুকিয়ে লুকিয়ে হলে নিয়ে আসি। অনার্সে পড়ি এখন বিদ্যাকৌশল পড়বো, পড়াশোনা কিভাবে করবো তা এখন শিখবো, কেউ দেখে ফেললে পেস্টিজ পানচার হয়ে যেতে পারে – এই ভয়ে ছিলাম। প্রতিদিনই পড়তে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ার অভ্যাস হয়ে গেছে আমার। বই পড়লে আত্মার খাবার হয়ে যায়, বিধায় তৃপ্তি নিয়ে ঘুমাতে পারি এজন্য বই আমার কাছে ঘুমের অদ্বিতীয় এক ঔষধ হিসেবে বিবেচিত হয়।

 বইটি পড়া শুরু করলাম রাত ১১ টায়, এক পৃষ্ঠা, দুই পৃষ্ঠা, তিন পৃষ্ঠা, চার পৃষ্ঠা আরেক পৃষ্ঠা, আরেক পৃষ্ঠা, আরেক পৃষ্ঠা, দেখিতো আরেকটা পৃষ্ঠা এবং আরেক পৃষ্ঠা-পৃষ্ঠা-পৃষ্ঠা-পৃষ্ঠা…. না ঘুম আজ আসছে না কিছুতেই। রাত ৩টা বাজে ঘুমানোর কথা ভুলে গেছি, আজ আমি এক নতুনের পথে যাত্রা শুরু করার প্রত্যয় খুঁজে পেয়েছি। সবাইকে হারিয়ে দিয়ে জয়ী হয়ে যাওয়ার পথে কচ্ছপ দৌড় দৌড়াচ্ছি- slow but steady। খরগোস ঘুমাচ্ছে, ক্রমশঃ আমি গন্তব্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি।

আজ আমি নতুন করে আমাকে সাজানোর প্রেরণা খুঁজে পাচ্ছি। পারবে না আর কেউ রুখতে আমায় এবার আমি করবই জয়। অসাধারণ একটি বই আজ আমার টেবিলে স্থান লাভ করছে। ভালো কিছু করতে পারলে আমি নিজেকে সবসময়ই কিছু না কিছু উপহার দেই, বইটি কিনে আমি একটা মহৎ কাজ করেছি, ছোট খাট উপহারে চলবে না। সম্পূর্ণ বই একবসায় পড়ে শেষ করতে হবে।

বইটি যতই পড়ি ততই নিজের দুর্বলতা খুঁজে পাই। প্রতিটা পৃষ্ঠায় একটা কথাই মনে আসে- আশ্চর্য্য তো, এই ভুলটাই তো আমি বেশির ভাগ সময়ে করেছি, এইরকম করতে গিয়েই তো সব খুইয়েছি। বইটিতে প্রত্যেকটা বিষয় এমনভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে- মনে হচ্ছে আমাকে নিয়ে লেখকের কয়েক কোটি রিসার্চ করা হয়ে গেছে। বইয়ে লেখক খুটিয়ে খুটিয়ে বের করে এনেছেন শিক্ষার্থীদের ভালো লাগার মন্দ লাগার বিষয়গুলো, দিয়েছেন গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা। জানিয়েছেন অজানা সকল তথ্যকে যা একজন শিক্ষার্থী হিসেবে সকলেরই জানা উচিত।

লেখক কি করে যেন জেনে গেছেন শিক্ষার্থীদের প্রচলিত পরীক্ষা পদ্ধতির কট্টর বিরোধীতার কথা।এক্ষেত্রে তিনি আত্মসমর্পন করার পরামর্শ দিয়েছেন। বলেছেন- মানি আর না মানি প্রচলিত পদ্ধতি মেনেই একাডেমিক লাইফে চলতে হবে, বিদ্রোহ করলে আম-ছালা দুটোই হারাবে। অনেকে ভালো বুঝতে পারে অথচ পরীক্ষার খাতায় ঠিকঠাক লিখতে পারেনা বলে কাঙ্খিত মার্কসও পায়না।  

বইয়ের শেষ দিকে আছে অভিভাবকদের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা, আপনার সন্তানকে কীভাবে পড়ার ব্যাপারে সাহায্য করবেন এব্যাপারেও কার্যকরী উপায় বাতলে দিয়েছেন তার বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে। লেখাপড়ায় ভালো করতে মেধাবী হওয়াই মূল কথা নয়, হতে হবে পরিশ্রমী। জ্ঞান চর্চা যেহেতু গতর খাটা জাতীয় কোন পরিশ্রম না এজন্য এই সেক্টরে ভালো করতে হতে হবে কৌশলী। সবার মেধা এক নয় একথা ঠিক কিন্তু পরিশ্রম করে এই পার্থক্য দূর করা যায়। একজন শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবনে যতপ্রকার কৌশল অর্জন করা জরুরী তাই আছে এই রত্নভান্ডারে।

বইটির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে যেটা বুঝতে পারলাম কত কত ভুল পদ্ধতি ছিলো লেখাপড়ায়, গাধা মার্কা ঢেউটিন ছাত্র হওয়া সত্ত্বে ও কি করলে এই আমিও গড়তে পারতাম বেস্ট একটা একাডেমিক ক্যারিয়ার। এজন্য বইটি পড়তে গিয়ে যতটুকু আনন্দ পেয়েছি তার চেয়ে বেশী আফসোস করেছি।

যদি বিদ্যাকৌশল কে শুধুমাত্র একটি বই বলেন তবে ভুল করবেন। আমি এটাকে কোনভাবেই শুধু একটা বই বলতে পারিনা।  শিক্ষার্থীদের জন্য এটা এক মহৌষধের নাম। বিদ্যাকৌশল এমন এক সম্পদ যা প্রত্যেক শিক্ষার্থীর সংগ্রহে থাকা উচিত। কেননা কেউ যদি এই বইটির নির্দেশনা গুলো মেনে চলতে পারে তবে আমি মনে করি, ভবিষ্যত প্রজন্মে মেধাবী আর পিছিয়ে পড়া এই দুইটি দল তৈরী হতে পারবে না। আশা করি বইটি পড়লে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই নিজেদেরকে উজ্জ্বল আলোয় আলোকিত করার পথ খুঁজে পাবে।

  1. বইয়ের নামঃ বিদ্যাকৌশল
  2. বইয়ের লেখকঃ রাগিব হাসান
  3. রিভিউ লেখকঃ Alamin Howlader
  4. পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ১২৮ টি।
  5. বইয়ের ধরনঃ ছাত্রজীবন উন্নয়ন
  6. পিডিএফ সাইজঃ ১৮ মেগাবাইট প্রায়।
  7. ডাউনলোডঃ বিদ্যাকৌশল pdf
  8. রকমারিঃ বিদ্যাকৌশল বই

#বইটি ইন্টারনেট থেকে সংগীত। #লেখকের ক্ষতি আমাদের কাম্য নয়,  বইটির হার্ড কপি কেনার সমর্থ থাকলে বইটির হার্ড কপি কিনে পড়ুন।

আমাদের ব্লগে আপনার কোনো যদি পিডিএফ  থাকে,  আপনার অভিযোগ থাকলে   আমাদের জানানোর ২৪ ঘন্টার মধ্যে রিমুভ করে দিবো। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। ধন্যবাদ পোস্ট টি পড়ার জন্য।

Dreamer

শিখতে ও শেখাতে ভালোবাসি ...........

View all posts by Dreamer →