June 14, 2024

তারা তিনজন বই PDF Download | Tara Tinjon by হুমায়ূন আহমেদ

তারা তিনজন বই ইমেজ

  তারা তিনজন (Tara Tinjon)  হুমায়ুন আহমেদের লেখা অসাধারণ একটি সায়েন্স ফিকশন বই। pdf size: 10 mb. Total page: 112. Written by Humayon Ahmed.

তারা তিনজন বই রিভিউঃ

অয়ু, লী ও নীম। তিন ভাই বলা যায় তাদের। তারা একসাথে থাকে পৃথিবী থেকে অনেক দুরে ভিন্ন একটি গ্রহে। তাদের মা অনেক আগে মারা গেছে। সৌরতাপ থেকে এনার্জি পায় বিধায় ওদের খাদ্য গ্রহন করা লাগেনা। পাথরে ভরা সেই গ্রহে খুব বিরক্তিকর জীবন পার করে তারা। ভিন্নতা শুধু একটি ক্ষেত্রে। সে গ্রহে আছে নিওলিথী সভ্যতার নির্দশন। কিছু আকাশচুম্বি দালান।

 কিন্তু তাদের মা সেই দালানে তাদের প্রবেশ করতে নিষেধ করে দিয়েছেন। এছাড়া সবসময় তাদের তিনজনকে একসাথে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। ওদের মূল শক্তি হচ্ছে কম্পন। বস্তুর কম্পনের মাধ্যমে ওরা সবকিছু বুঝতে পারে। দেখতে ওরা কিছুটা বিদঘুটে। এগারোটা করে পা। মুখের চারপাশে কিছু লুখ আছে যা দ্বারা ওরা কম্পন টের পায়। গ্রহটিতে তাদের কোনো কাজ নেই। তারা শুধু চিন্তা করে। সমস্যা নিয়ে চিন্তা করে। এটাই তাদের একমাত্র কাজ।

বসে বসে বিরক্ত হয়ে নীম ও লী চলে যায় সেই দালানগুলো দেখতে। লী বাইরে থাকে এবং এই প্রথমবার নিষেধ অমান্য করে নীম সেখানে প্রবেশ করে। অপরদিকে একটি আহত পা নিয়ে বসে থাকে অয়ু। আর ঠিক সেই সময় সেখানে একটি শক্তিশালী মহাকাশ যান নিয়ে আবির্ভাব হয় মানুষের। অদ্ভুত এই জীব দেখে মহাকাশযাত্রীরা ভয় পায়। তবে জীবটি তাদের কোনো ক্ষতি করেনা। বরং তারা প্রত্যেকেই সেচ্ছায় খাচায় ঢুকে যায়।

 ভয় পাওয়ার আরো একটি কারন হলো জীবগুলোর ওপর ওমিক্রন গান কোনো প্রভাব ফেলে না। তারা সেই স্পেসশিপে আশ্রয় নেয়। সেখানে অয়ুর সাথে ভাব হয় স্রুরার, সে একজন মহাকাশযাত্রী। সে ওদের ভয় পায় না। বরং স্পেশশীপের ভিতর সেই প্রথমে বুঝতে পারে এরা খুব বুদ্ধিমান প্রাণী। এরা মানুষের মনের কথা, চিন্তাধারা বুঝতে পারে। এবং খুব দ্রুত যেকোনো কিছু শিখতে পারে।

এদিকে একটা ভয়ানক তথ্য জানায় সুপার কম্পিউটার সিডিসি। সিডিসি জানায় এরকম আরো তিনটি গ্রহ থেকে এলিয়েন আবিষ্কার করা হয়। যখনই তাদের নিয়ে স্পেশশীপ পৃথিবীর দিকে রওনা দেয় তখনই একটা ব্ল্যাকহোলের আওতায় পড়ে সব হারিয়ে যায়। এই তথ্য জেনে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন শীপের প্রধান কীম।

অপরদিকে আরেকটি দল আরেকটি ছোট স্পেশশীপ নিয়ে রওনা দিয়েছে নিওলিথী সভ্যতার নির্দশনের সন্ধানে। এই নিওলিথী সভ্যতা অনেক প্রাচীন সভ্যতা হওয়া সত্তেও এদের সর্ম্পকে সঠিক কোনো তথ্য মানুষের কাছে নেই। জটিল এই রহস্য সমাধানের এই সুযোগ। কিন্তু গ্রহটিতে নামার পরই তাদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায় মূল স্পেশশীপের।

আর সেখান থেকে দুজন ব্যাক্তি প্রবেশ করেন সেই ভবনগুলোতে। অপরদিকে নীমও একটা সময় বুঝে ফেলতে পারে সে নিজেও ভেদ করে ফেলেছে নিওলিথী সভ্যতার রহস্য। কিন্তু ততোক্ষনে তাদের হত্যা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্পেশশীপ প্রধান কিমের পক্ষ থেকে।

বইটা খুবই সুন্দর। পরোক্ষভাবে অনেকটা মানুষের ভয় থেকে সৃষ্টি হওয়া নিষ্ঠুরতাকে প্রকাশ করা হয়েছে বইটির মাধ্যমে। দেখানো হয়েছে কিভাবে মানুষ একইসাথে দ্বৈত আচরন করে। সে একই সাথে যুক্তিতে চলে আবার অযৌক্তিকতায়ও বিশ্বাস করে। মানুষ ভয় পায় নিজের চেয়ে বুদ্ধিমান প্রাণীকে বা বলা যায় বুদ্ধিমান অন্য মানুষকে আর তাই তাকে ঠেকিয়ে রাখার জন্য আশ্রয় নেয় নিষ্ঠুরতার। বইটা সায়েন্স ফিকশন হলেও এর ভাবধারা বাস্তবমুখী। মানুষের যে মানসিক গঠন তুলে ধরা হয়েছে তা একদম বাস্তবমুখী।

বইয়ের নামঃ তারা তিনজন
বইয়ের লেখকঃ হুমায়ুন আহমেদ
পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ১১২ টি।
বইয়ের ধরনঃ সায়েন্স ফিকশন বই
পিডিএফ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট প্রায়।
ডাউনলোডঃ

Click Now

Download Now

রকমারিঃ তারা তিনজন বই 

#বইটি ইন্টারনেট থেকে সংগীত। #লেখকের ক্ষতি আমাদের কাম্য নয়,  বইটির হার্ড কপি কেনার সমর্থ থাকলে বইটির হার্ড কপি কিনে পড়ুন।
আমাদের ব্লগে আপনার কোনো যদি পিডিএফ  থাকে,  আপনার অভিযোগ থাকলে   আমাদের জানানোর ২৪ ঘন্টার মধ্যে রিমুভ করে দিবো। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। ধন্যবাদ পোস্ট টি পড়ার জন্য।

Dreamer

শিখতে ও শেখাতে ভালোবাসি ...........

View all posts by Dreamer →